চীনের নিজস্ব মহাকাশ স্টেশন থেকে পৃথিবীর ভিডিও দিল চায়না..

চীনের নিজস্ব মহাকাশ স্টেশন থেকে পৃথিবীর ভিডিও দিল চায়না...


কেমন লাগে সেই ভিডিও আগে আপনারা দেখেছেন তবে আজকে আপনারা দেখতে পারবেন চিনের যে তিয়ানহে মডিওল টি থেকে দেখতে কেমন লাগে।

যখন কমপ্লিট হবে আগামী দেড় বছরের মধ্যে তখন তার নাম হবে এবং তিয়ানগং স্পেস স্টেশন এর আগেও দিয়েছিল তবে এবারের প্রযুক্তি আর এই মুহূর্তে তিনজন মহাকাশচারী রয়েছেন এই মহাকাশ স্টেশনের মধ্যে আপাতত এটিকে সম্পূর্ণরূপে তিয়াঙ্গন বলা যাবেনা এটিকে আপাতত তিয়ানহে বলা যেতে পারে এই মহাকাশ স্টেশনে কিন্তু চীন নিজস্ব ক্ষমতায় বানিয়েছে এবং মহাকাশে প্রেরণ করেছে সাকসেসফুলি।

তবে শুরুতে একটু সমস্যা হয়েছিল অবশ্য সমস্যাটা খুব বড় আকার ধারণ করেনি, সমস্যা টা হলোএপ্রিলের 28 তারিখ লঞ্চ হয়েছিল লংমার্চ এই সময়ে লংমার্চে ফাইভ রকেট একটা সমস্যা হয়েছিল যদিও এই তিয়ানহে মহাকাশ স্টেশন এর যেকোনো দুটি পাঠানো ছিল তাতে কোনো সমস্যা হয়নি সমস্যা হয়েছে এটিকে লঞ্চ করার পর ছাড়া হয় তারপর মানে থেকে যখন প্লেস করে দেওয়া হয় তারপর লংমার্চ ফাইভ রকেটের একটি 100 পর্যন্ত পৃথিবীর দিকে ছুটে আসতে থাকে পরবর্তী সময়ে এটি একেবারেই জরুরি হয়ে পড়ে তাতে কোনো সমস্যা দেখা দেয় নি কিন্তু মহাকাশ কমিশন থেকে কাদের বলা হয়েছিল যে আগামী দিনে যেন খেয়াল রাখা হয়, কোন রকম এই ধরনের সমস্যা না হয়।

জানুক পৃথিবী থেকে 500 কুড়ি কিলোমিটার উপরে এই মহাকাশযানটি ঘটছে তবে 500 কুড়ি শুধু নয় যখন কমে আসে দূরত্ব তখন 470 80 কিলোমিটার হয়ে যায় তবে এটুকু বলা যেতে পারে আমাদের জানা পরিচিত যে আইএসএস মানে ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশন 380 থেকে 400 কিলোমিটার এর দূরত্ব কত পথ পৃথিবীর মাটি থেকে সেই দূরত্ব অবলম্বন করে ঘুরতে থাকা আর এই যে মহাকাশযানটি আপাতত তিয়ানহে বলা যেতে পারে সেটি যেটা বললাম 480 থেকে 500 কুড়ি কিলোমিটার এর যে কক্ষপথে সেখানে প্রতিনিয়ত ঘুরে চলেছে মহাকাশচারীরা স্পেসওয়ার্ক করেছেন তার ভিডিও আমরা দেখতে পেয়েছি।

তবে এই প্রথম আমরা চীনের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা সিএনএস মানে চায়না ন্যাশনাল স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন তাদের তরফ থেকে দারুন ফোরকে high-definition হাই-ডেফিনেশন বলা যাবেনা আলট্রা হাই ডেফিনেশন ফুটেজ পেয়েছি এবং সেখান থেকে পৃথিবীর অবাক করা সুন্দর এর মত লাগছিল যদিও আমরা রাতের আকাশ যখন দেখলাম তখন পৃথিবী কে দেখা যাচ্ছিল না তবে ভোর থেকে সারাদিন এবং দিন গড়িয়ে গিয়ে রাত তা কিন্তু আমরা দেখতে পেয়েছি। 

এই প্রকাশ করা ভিডিওর মাধ্যমে আপনাদের সামনে সেই high-definition আবার মাফ করবেন ফোরকে হাই রেজুলেশন ভিডিও নিয়ে এলাম কেমন লাগলো।

এবং জানাই চীন ইদানিং কিন্তু মহাকাশ গবেষণার দিক থেকে মারাত্মক ইতিহাস করে চলেছে কাজ করছে তাদের রোভার মঙ্গলের বুকে যার নাম 21 মিশন মঙ্গল অভিযান কিন্তু সাকসেসফুলি করে দেখিয়েছেন আর নিজস্ব মহাকাশ যান বা মহাকাশ স্টেশন প্রায় আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের সঙ্গে একটা ছোট্ট করে এই মুহূর্তে যতটা জানা যাচ্ছে আগামী দিনে রাশিয়াও নিজস্ব একটি স্পেস স্টেশন মহাকাশে পাঠাবে এবং রাশিয়া আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন থেকে তার পার্টিসিপেশনে দেবে এবং আগামী দিনে রাশিয়া নিজস্ব মহাকাশ অভিযানের মাধ্যমে এক্সপ্রেস স্টেশন থেকে গড়ে তুলবে। 

আপতত দুটো মহাকাশ স্টেশন ঘুরে বেড়াচ্ছে পৃথিবীর কক্ষপথের যা হলো একটি আইএসএস এবং একটি হলো তিয়ানহে বলে যে চীনের মহাকাশ স্টেশন আগামী দিনে আরও একটি অর্থ যুক্ত হতে চলেছে তো কেমন লাগলো চীনের মহাকাশ।

অভিযানের ভিডিও আশা করি সবাই ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন আবার ভিডিও নিয়ে আসবো।

FOKiNNi.com

Post a Comment

Previous Post Next Post